রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০৩:৫৯ পূর্বাহ্ন

কিশোরগঞ্জে বাসি পঁচা খাবার খাইয়ে হত্যার অভিযোগ

মিল্লাত হোসেন,কিশোরগঞ্জ(নীলফামারী) প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময়ঃ শনিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২০
শোকে কাতর হয়ে পরেছে সিফাতের পরিবার। মৃত ছেলের ছবি বুকে নিয়ে বারবার সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলছেন মা শিল্পী বেগম। সংজ্ঞা ফিরে পেলেই আহাজারি করছেন। আমার শিশু ছেলেটি কি অপরাধ করেছিল। তার শত্রুতা ছিল আমার সাথে। আমার ছেলেকে কেন মারলো। গত ১২ই নভেম্বর নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার গাড়াগ্রাম পশ্চিম দলিরাম গ্রামে ভ্যানচালক জালাল উদ্দিনের বাড়িতে গিয়ে এদৃশ্য দেখা যায়।
৭নভেম্বর সকালে প্রতিবেশী জোনাব আলী ৫ বছরের শিশু সিফাতকে বেকারীর বানানো সিংগাড়া ও চকোবিন চকলেট খাওয়ায়। কিছুক্ষন পর সিফাতের প্রচন্ড পেট ব্যাথা শুরু হয়। তাকে অজ্ঞান অবস্থায় রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৯নভেম্বর সে মারা যায়। এ ঘটনায় এলাকাবাসীর মনে সন্দেহের দানা বাধছে।
সিফাতের মা শিল্পী বেগম বলেন, দোকানি জোনাাব আলীর স্ত্রী লাভলী বেগমসহ স্থানীয় একটি বিড়ি ফ্যাক্টরীতে কাজ করি। সব শ্রমিকের চেয়ে আমি বেশী বিড়ি উৎপাদন করি। এ নিয়ে লাভলী বেগমের সাথে প্রায়ই আমার ঝগড়া বাধে। এ ঘটনার জের ধরে ৭নভেম্বর আমার ছেলেকে ডেকে নিয়ে মাগুড়া ওয়াদা বেকারীর তৈরী করা বাসি পচঁা সিংগাড়া ও নিম্নমানের চকোবিন চকলেট খাওয়ায়। এর কিছুক্ষন পরেই সিফাতের প্রচন্ড পেট ব্যাথা শুরু হয়। ৯নভেম্বর দুপুর ১২টার সময় রংপুর হাসপাতালে আমার ছেলে মারা যায়।
গাড়াগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মারুফ হোসেন অন্তিক জানায়, আমি শুনেছি সিংগাড়া ও চকোবিন চকলেট খাওয়ার পর সিফাত অসুস্থ্য হয়ে পরে এবং চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়।
সিফাতের বাবা জালাল উদ্দিন বলেন, আমার ছেলেকে জোর করে বাসি পঁচা খাদ্যসামগ্রী খাইয়েছে জোনাব আলী। রংপুর মেডিকেল ডাক্তারের ৭৫৬ নম্বর মৃত্যু সনদে বিষক্রিয়ার জন্য মৃত্যুও কারণ উল্লেখ করা হয়েছে। কিশোরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়াল বলেন, এঘটনায় রংপুরের সদর থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে। ভিসেরা রিপোর্টে বিষের উপস্থিতি থাকলে আমরা হত্যা মামলা রজু করবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
কারিগরি সহযোগিতায়: আরএসকে হোস্ট
01779911004