শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ০৩:২২ পূর্বাহ্ন

কুড়িগ্রামে জালিয়াতি করে একই এনআইডি দিয়ে দুই ভাইয়ের চাকরি

স্টাফ রিপোর্টারঃ
  • প্রকাশের সময়ঃ রবিবার, ২২ নভেম্বর, ২০২০

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে আলাদা দুটি এনআইডি কার্ডে একই নাম ব্যবহার করে জালিয়াতির মাধ্যমে সরকারি চাকরি করছে আপন দুই ভাই। শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকলেও সনদ ক্রয় করে চাকরি করার অভিযোগ উঠেছে ওই দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে। জাতীয় পরিচয়পত্রে তথ্য জালিয়াতি করায় আইনি ব্যবস্থা নিতে নির্বাচন কমিশনের চিঠি পাঠিয়েছে জেলা নির্বাচন কমিশন। চাঞ্চলকর এ ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার সন্তোষপুর ইউনিয়নের কুটি নাওডাঙ্গা গ্রামে।

সরেজমিনে ওই এলাকায় গিয়ে জানা যায়, ওই গ্রামের বাসিন্দা আইনুল হকের দুইপুত্র আনিছুর রহমান এবং আজিজুল হক। বড় সন্তান আনিছুর রহমান স্নাতক পাশ করে ২০১২ সালে রংপুর বেতারে অফিস সহায়ক পদে যোগদান করে। অপর সন্তান আজিজুল হক ৮ম শ্রেণি পাশ দেখিয়ে ২০১৪ সালে বাংলাদেশ রেলওয়েতে ওয়ারম্যান পদে যোগদান করে। ছোট সন্তান আজিজুল হক তথ্য গোপন করে নিজের জাতীয় পরিচয়পত্রে নাম পরিবর্তন করে বড় ভাই আনিছুর রহমানের নাম ব্যবহার করে। ফলে আলাদা দুটি পরিচয়পত্র হলেও জালিয়াতি করে দুটিতেই আনিছুর রহমানের নাম সংশোধন করে ব্যবহার করা হয়।

খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, পূর্বের এনআইডিতে আজিজুল হকের জন্ম ছিল ৫ এপ্রিল ১৯৮৭ সাল এবং পেশা ছিল কৃষক। অপরদিকে আনিছুর রহমানে জন্ম ছিল ৭ জুলাই ১৯৮২ সাল। আজিজুল হক তার এনআইডি কার্ডে নিজের নাম ব্যবহার না করে আনিছুর রহমানের নাম ব্যবহার করে। সেই নাম ব্যবহার করে দীর্ঘদিন ধরে তথ্য জালিয়াতি করে সরকারি চাকরি করে যাচ্ছে কর্তৃপক্ষের নাকের ডগায়।

অভিযোগ অস্বীকার করে আজিজুল হক জানান, তারা দুজন জমজ ভাই। তার আসল নাম আজিজুল হক হলেও চাকরি করার কারণে নাম পরিবর্তন করেছেন। তবে তিনি স্বীকার করেন ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশুনা করেননি। কিন্তু সনদটি সন্তোষপুর আদর্শ দ্বিমূখী উচ্চবিদ্যালয় হতে একশ টাকা দিয়ে ক্রয় করেছেন বলে জানান।

অপরদিকে আনিছুর রহমান জানান, রেলের চাকরি মানেই হচ্ছে ঘাসকাটার চাকরি। এই চাকরি পেতে ভোটার আইডি সংশোধন করা হয়েছে। একই নাম ব্যবহার করা প্রসঙ্গে তিনি জানান নামে একজনের ‘ছ’ এবং অপরজনের ‘স’ অক্ষর রয়েছে। ওই এলাকার বাসিন্দা মহির উদ্দিন, জব্বার ও শহিদুল জানান, ওরা জমজ ভাই নয়। দুজনের মধ্যে ৪/৫ বছরের ব্যবধান রয়েছে। আনিছুর বড় এবং আজিজুল ছোট ভাই। তারা যে একই নাম ব্যবহার করে চাকরি করছেন তা স্থানীয়রা জানেন না।

ওই ওয়ার্ডের ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার তাজুল ইসলাম জানান, তার ওয়ার্ডে আনিছুর রহমান ও আজিজুল হক নামে দুইভাই ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছে। দুইভাইয়ের নাম এক নয়।

এ ব্যাপারে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম রাকিব জানান, আজিজুল হক থেকে আনিছুর রহমান হলেও জাতীয় পরিচয়পত্রে তথ্য গোপন করা হয়েছে। তথ্য গোপন করার বিষয়টি নির্বাচন কমিশনারের নিকট লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। নির্বাচন কমিশনার হতে নির্দেশনা আসলেই সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
কারিগরি সহযোগিতায়: আরএসকে হোস্ট
01779911004